৯ ডিসেম্বর থেকে তিন দিনব্যাপী ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের সপ্তম আসর

টেকআলো প্রতিবেদক:
‘সোশ্যালি ডিসটেন্স, ডিজিটালি কানেক্টেড’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০২০’ অনলাইন মেলার লোগো উন্মোচন, ওয়েবসাইট উদ্বোধন ও কর্মসূচী ঘোষনা উপলক্ষ্যে আজ (২৯ নভেম্বর) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) ও আইসিটি বিভাগ এর উদ্যোগে বিসিসি অডিটোরিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে অনলাইন মেলার যাবতীয় আয়োজন সরাসরি উপস্থিত ও অনলাইম মাধ্যমে সংযুক্ত গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে তুলে ধরেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলক ।আগামী ৯-১১ ডিসেম্বর কোভিড-১৯ এর কারনে অনলাইন প্ল্যাটফর্মেই ভার্চুয়াল মাধ্যম ও ভৌত কাঠামোর সংমিশ্রণে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় এবং এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ এই তথ্য প্রযুক্তি মেলা ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০২০’। ডিজিটাল বাংলাদেশের যাত্রা শুরু হয় ২০০৯ সালে। এই দীর্ঘ ১২ বছরের বাংলাদেশের ডিজিটাল অর্জনকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরা এবং ডিজিটাল কর্মকান্ডে তরুণদের আরো আগ্রহী করে তুলে বিশ্ব প্রযুক্তি বাজারের সাথে কানেক্টিভিটি তৈরির লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত হয় এই আয়োজন।

উক্ত অনুষ্ঠানে অনলাইন মেলার লোগো উন্মোচন, ওয়েবসাইট উদ্বোধন পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০২০’ আয়োজনের কর্মসূচি তুলে ধরে জুনাইদ আহমদে পলক এমপি বলেন, বেত বুনিয়ায় বাংলাদেশের প্রথম ভূ-উপগ্রহ স্থাপনের মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশের মানুষকে তথ্য প্রযুক্তির সেবার যাত্রা শুরু করেছিলেন। তাঁর স্বপ্ন ছিলো বিজ্ঞান ও আধুনিকতার সমন্বয়ে দেশ গড়া। বঙ্গবন্ধুর সেই অসমাপ্ত স্বপ্ন বাস্তবায়নে লক্ষ্যে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তাঁরই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বাংলাদেশের মানুষ ৪৬ হাজার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে নাগরিক সেবা লাভ করছে। ২০২১ সালের মধ্যে আমরা মধ্যম আয়ে রুপান্তরিত হব এবং ২০৪১ সালে তৈরি হবে উন্নত বাংলাদেশ। আমাদের এই সক্ষমতা তুলে ধরতেই ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড প্ল্যাটফর্মের আয়োজন।

‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০২০’ অনলাইন মেলার কর্মসূচি সম্পর্কে বলা হয় আগামী ৯ ডিসেম্বর সকাল ১০.৩০ মিনিট থেকে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন শুরু হবে এবং সকাল ১১ টায় অনলাইনে যুক্ত হয়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ মেলার শুভ উদ্বোধন করবেন। এরপর আনুষ্ঠানিকভাবে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০২০’ এর যাত্রা শুরু হবে। এর মধ্য দিয়ে যেকেউ মেলার ভার্চুয়াল স্টলগুলো পরিদর্শন করে যোগাযোগ, সেবা ও পরামর্শ গ্রহণ করতে পারবেন। ১০ তারিখ বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে মিনিস্ট্রিয়াল কনফারেন্স। উক্ত কনফারেন্সে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সমপদমর্যাদার ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে ‘অ্যামব্রাসিং ডিজিটাল টেকনোলজিস ইন দ্যা নিউ নরমাল’ বিষয়ে ‘কি-নোট’ প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করবেন প্রধাননমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।
এছাড়া ১১ ডিসেম্বর বিকাল ৩টায় ‘ইনক্লুসিভ ডেভলপমেন্ট’বিষয়ে অনুষ্ঠিত সেমিনারে অংশগ্রহণ করবেন ডব্লিউএইচও এর অ্যাডভাইজরি প্যানেলের মেন্টাল হেলথ বিষয়ক এক্সপার্ট ও অটিজম বিষয়ক ন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটির চেয়ারপার্সন সায়মা ওয়াজেদ হোসেন। ঐদিন ১২ টি ক্যাটাগরিতে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড এর সম্মাননা প্রদান করা হবে এবং সন্ধ্যা ৫.৩০ মিনিটে মেলার সমাপনী ঘোষণা করা হবে। উক্ত সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। এছাড়াও উক্ত অনলাইন মেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে তাঁর শৈশব, কৈশোর ও বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবন তুলে ধরতে সাজানো হয়েছে ‘মুজিব কর্ণার’। এ বছর ১০ লাখেরও বেশি দেশি ও বিদেশি পরিদর্শক’কে উক্ত মেলায় অংশগ্রহণ করানোর লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ করা হচ্ছে।

এসময় মেলায় অংশগ্রহণ এবং ভার্চুয়াল অভিজ্ঞতার বিষয়গুলো গণমাধ্যমে তুলে ধরা হয়। আগামী ৯ ডিসেম্বর ১০.৩০ মিনিটে www.digitalworld.org.bd এই লিংক-এ রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে যে কেউ মেলায় প্রবেশ করতে পারবে। রেজিস্ট্রেশনের পর পছন্দের অ্যাভাটারে করে মেলার ভার্চুয়াল স্টলগুলো ঘুরে দেখতে পারবে। স্টলগুলো সাজানো থাকবে ৩টি ক্যাটাগরিতে। চাইলেই এগুলো কাস্টমাইজ করা যাবে এবং আলাদা আলাদা ফিচার অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে। এমনকি প্রতিটি স্টলের জন্যও থাকবে আলাদা অ্যাভাটার। যারা আগত দর্শককে অভ্যর্থনা জানাবে। দর্শক ভার্চুয়াল মাধ্যমেই নির্দিষ্ট স্টলের সাথে চ্যাটে কিংবা ভিডিও কলে যোগাযোগ স্থাপন করে সেবা গ্রহণ করতে পারবে।

উক্ত সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের অতিরিক্ত সচিব রীনা পারভিন, এটুআই এর প্রকল্প পরিচালক ড. মোঃ আব্দুল মান্নান পিএএ, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল-এর নির্বাহী পরিচালক পার্থ প্রতিম দেব, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর সভাপতি আলমাস কবির। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন হাইটেক পার্ক, এটুআই, উইমেন এন্ড ই-কমার্স, বাক্য, ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সিসহ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা এবং প্রতিনিধিবৃন্দ।